মেসি-এমবাপ্পের যুগলবন্দীতে জিতল পিএসজি

চ্যাম্পিয়নস লিগ শেষ ষোলো প্রথম লেগে বুধবার ঘরের মাঠে রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে পিএসজি। রেঁনের বিপক্ষে ম্যাচটা ছিল তার শেষ প্রস্তুতি। 

পার্ক দেস প্রিন্সেসে আজ সে প্রস্তুতিতে শেষ বাঁশি বাজার পর স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ার কথা পিএসজি কোচ মরিসিও পচেত্তিনোর। ঘরের মাঠে পয়েন্ট খোঁয়ানোর শঙ্কা যখন চোখ রাঙাচ্ছিল, তখন পিএসজি জিতেছে মেসি-এমবাপ্পের যুগলবন্দীতে।

নির্ধারিত সময় পর্যন্তও গোলশূন্য ছিল দুই দল। এবার লিগে রেঁনের সঙ্গে প্রথম দেখায় ২-০ গোলে হেরেছিল পিএসজি। আজও জয়হীন থাকতে হতো যদি যোগ করা সময়ের তিন মিনিটের মাথায় গোল না করতেন এমবাপ্পে। 

দারুণ এক পাসে ফরাসি ফরোয়ার্ডকে দিয়ে গোলটি করান লিওনেল মেসি। ১-০ গোলের জয়ে লিগ আঁ-তে টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত রইল পিএসজি।

নির্ধারিত সময় পর্যন্তও গোলশূন্য ছিল দুই দল। এবার লিগে রেঁনের সঙ্গে প্রথম দেখায় ২-০ গোলে হেরেছিল পিএসজি। আজও জয়হীন থাকতে হতো যদি যোগ করা সময়ের তিন মিনিটের মাথায় গোল না করতেন এমবাপ্পে। 

দারুণ এক পাসে ফরাসি ফরোয়ার্ডকে দিয়ে গোলটি করান লিওনেল মেসি। ১-০ গোলের জয়ে লিগ আঁ-তে টানা ১৫ ম্যাচ অপরাজিত রইল পিএসজি।

লিলের বিপক্ষে আগের ম্যাচে ৫-১ গোলের জয়ে ফ্রেঞ্চ কাপ থেকে বিদায়ের শোক কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করে পিএসজি। সে ম্যাচের দলে চার পরিবর্তন এনে একাদশ সাজান পচেত্তিনো। 

গোলপোস্টে কেইলর নাভাস, রক্ষণে হুয়ান বের্নাত, মাঝ মাঠে ইউলিয়ান ড্রাক্সলার এবং আক্রমণে মেসি-এমবাপ্পের পাশে ১৮ বছর বয়সী জাভি সিমন্সকে খেলান পচেত্তিনো।

প্রথমার্ধেই গোলের দেখা প্রায় পেয়েই যাচ্ছিলেন সিমন্স। বাঁ প্রান্ত দিয়ে বক্সে ঢুকে এমবাপ্পের নেওয়া বাঁকানো শট রেঁনের পোস্টে লাগে। ফিরতি বলে সিমন্সের শট রুখে দেন রেঁনে ডিফেন্ডার। প্রথমার্ধে ৪০ মিনিটে ওই মুহূর্তটুকু ছাড়া পিএসজি তেমন ভালো খেলতে পারেনি। বরং দৌড়ের সুযোগ বের করে পাল্টা চাপ বিস্তার করেছেন রেঁনের খেলোয়াড়েরা। 

বিরতির পর ৬৪ মিনিটে গোল পেতে পারত পিএসজি। এবারও সেই মেসি-এমবাপ্পে যুগলবন্দী। আর্জেন্টাইন তারকার ডিফেন্সচেরা পাস ধরে এমবাপ্পে বল জালে পাঠালেও অফ সাইডের কারণে গোল হয়নি।

তবে যোগ করা সময়ে আর ভুল হয়নি। প্রতি আক্রমণ থেকে এমবাপ্পেকে গোল বানিয়ে দেন মেসি। বাঁ প্রান্ত থেকে এমবাপ্পের বাঁকানো শট এবার রেঁনে গোলকিপারের গ্লাভসে লেগে জাল খুঁজে নেয়।

৬৬ মিনিটে ড্রাক্সলারকে তুলে আনহেল দি মারিয়াকে নামান পচেত্তিনো। পিএসজির খেলায় ধার বাড়ে। গতি ও দ্রুত পাস আদান প্রদান করে বেশ কিছু আক্রমণ সাজায় পিএসজি। যদিও একটি শটও রেঁনের গোলপোস্টে থাকেনি। যোগ করা সময়ে এমবাপ্পের গোলটিই গোটা ম্যাচে রেঁনের গোলপোস্টে রাখা পিএসজির একমাত্র শট।

এই জয়ে পয়েন্ট টেবিলে দ্বিতীয় মার্শেইয়ের সঙ্গে ১৬ পয়েন্ট ব্যবধানে শীর্ষস্থান ধরে রাখল পিএসজি। ২৪ ম্যাচে পচেত্তিনোর দলের সংগ্রহ ৫৯ পয়েন্ট।

মেরাজুল কনক

আমি মেরাজুল ইসলাম, একজন বাংলাদেশী ব্লগার। ব্লগিং এর পাশাপাশি আমি ওয়েবসাইট ডিজাইন, কন্টেন্ট রাইটিং, কাস্টমাইজ সহ ওয়েব রিলেটেড অনেক কাজ করি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন