দুর্দান্ত সাকিবে সিলেটের বিদায়

ম্যাচটার ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে গেছে প্রথম ভাগেই। সিলেট সানরাইজার্সের কাঁধে ১৯৯ রানের বোঝা চাপিয়ে দেয় সাকিব আল হাসানের ফরচুন বরিশাল। চাপে অবশ্য ভেঙে পড়েনি স্বাগতিক শিবির। পাল্টা জবাবে দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই করেছে সিলেট। কিন্তু জয়ের আশাটা নিরাশায় পরিণত হলো। ১২ রানে হেরে গেছে রবি বোপারার দল। এই হারে বঙ্গবন্ধু বিপিএল শেষ হয়ে গেল সিলেটের। 


আজ সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে নির্ধারিত ওভারে চার উইকেটে ১৯৯ রানের পাহাড় গড়ে বরিশাল। রান তাড়ায় ৬ উইকেটে ১৮৭ রান তুলতে সক্ষম হয় সিলেট। বৃথাই গেল কলিন ইনগ্রামের ৯০ রানের দুর্দান্ত ইনিংসটা। অলরাউন্ডিং পারফরম্যান্সের সুবাদে ম্যাচ সেরা হন সাকিব আল হাসান। এ নিয়ে টানা চার ম্যাচে সেরার স্বীকৃতি পেলেন বরিশাল অধিনায়ক। 

বরিশালের বড় সংগ্রহের নায়ক কয়েকজনই। তবে ৪৫ বলে গেইলের ৫২ রান রান করাটা দৃষ্টিকটু। ইনিংসের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করেও রুদ্রমূর্তি ধারণ করতে পারেননি ক্যারিবীয় ওপেনার। অথচ উদ্বোধনী জুটিতে তাঁর সঙ্গী মুনিম শাহরিয়ার ২৮ বলে করেন ৫১ রান। ইনিংস সাজান ছয়টি চার ও তিন ছক্কায়। চারটি চার ও দুই ছক্কা গড়া গেইলের ইনিংস। 

পরে ঝড় তোলেন সাকিব। ১৯ বলে ৩৮ রানের বিস্ফোরক ইনিংসে দুটি চার ও চারটি ছক্কা হাঁকান বাঁহাতি অলরাউন্ডার। চারটি ছক্কা মারেন ব্রাভোও। ১৩ বলে ৩৪ রানের টর্নেডো ইনিংসে অপরাজিত থাকেন ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার। ব্যাট হাতে আলো ছড়ানো সাকিব বোলিংয়েও ছিলেন দুর্দান্ত। চার ওভারে ২৩ রানে ২ উইকেট নেন তিনি। বাকি চারটি সমানভাবে নেন ব্রাভো ও নাজমুল হোসেন শান্ত। 

রান তাড়ায় প্রায় একাই লড়াই করেছেন ইনগ্রাম। ৪৯ বলে ৯০ রানে আউট হয়ে যান ইংলিশ ব্যাটার। তাতেই শেষ হয়ে যায় সিলেটের জয়ের স্বপ্ন। ১৬টি চার ও এক ছক্কায় গড়া ইনগ্রামের ইনিংসটা বিফলে গেছে অন্যদের ব্যর্থতায়। মোসাদ্দেক হোসেন ২১ বলে ৩৪ রানে আউট হন। আলাউদ্দিন বাবু ১২ বলে ২২ রানে অপরাজিত থাকেন। ১৪ বলে ১৯ রানে বিদায় নেন মোহাম্মদ মিঠুন। অধিনায়ক বোপারা ১১ বলে ৯ রানে আউট হন।

ঘরের মাঠে এই হারে বঙ্গবন্ধু বিপিএলের রবিন লিগ রাউন্ড থেকে ছিটকে গেল সিলেট সানরাইজার্স। আট ম্যাচের মাত্র একটিতে জয় তাদের। হার ছয়টিতে। অন্য ম্যাচটা বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়েছে। বিপরীতে নয় ম্যাচের ছয়টিতে জিতে প্লে-অফ পর্ব প্রায় নিশ্চিত হয়ে গেল বরিশালের। সাত ম্যাচে নয় পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়তে আছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। তাদের পেছনে আছে খুলনা টাইগার্স (সাত ম্যাচে আট পয়েন্ট), মিনিস্টার ঢাকা (সাত ম্যাচে সাত পয়েন্ট) ও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স (আট ম্যাচে ছয় পয়েন্ট)। 

মেরাজুল কনক

আমি মেরাজুল ইসলাম, একজন বাংলাদেশী ব্লগার। ব্লগিং এর পাশাপাশি আমি ওয়েবসাইট ডিজাইন, কন্টেন্ট রাইটিং, কাস্টমাইজ সহ ওয়েব রিলেটেড অনেক কাজ করি।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন